মানসিকভাবে শক্তিশালী মানুষেরা যে ১৩ টি কাজ করেন না

 In Articles

অ্যামি মরিন তার “থার্টিন থিংস মেন্টালি স্ট্রং পিপল ডোন্ট ডু” বইটিতে মানসিকভাবে শক্তিশালী মানুষরা যে কাজগুলো করেননা সে বিষয়ে বিস্তারিত জানিয়েছেন।

মানসিকভাবে শক্তিশালী মানুষদের কিছু স্বাস্থ্যকর অভ্যাস থাকে। তারা তাদের আবেগ, চিন্তাভাবনা এবং আচরণকে এমনভাবে পরিচালিত করেন যাতে জীবনে সাফল্য অর্জন করতে পারেন। মানসিক শক্তি প্রায়ই আপনি কী করছেন তার প্রতিফলন ঘটায় না। সাধারণত আপনি যা করছেন না তাকেই দেখায়। অ্যামি মরিন তার “থার্টিন থিংস মেন্টালি স্ট্রং পিপল ডোন্ট ডু” বইটিতে মানসিকভাবে শক্তিশালী মানুষরা যে কাজগুলো করেননা সে বিষয়ে বিস্তারিত জানিয়েছেন। মানসিক ভাবে শক্তিশালী মানুষেরা যে কাজগুলো করেন না সে বিষয়ে জানলে আপনিও নিজের মানসিক অবস্থাকে শক্তিশালী করতে পারবেন।

১. তারা দুঃখবোধ নিয়ে সময় নষ্ট করেন না: মরিন লিখেছেন যে, “নিজের জন্য দুঃখিত অনুভব করা আত্মবিধ্বংসী হতে পারে”। তিনি আরো বলেন, “পরিপূর্ণভাবে বেঁচে থাকায় বাধার সৃষ্টি করে আত্মকরুণা”। এর ফলে সময় অপচয় হয়, নেতিবাচক আবেগ তৈরি হয় এবং সম্পর্কেরও ক্ষতি করে। তিনি লিখেছেন, “পৃথিবীর ভালো জিনিসগুলোকে শনাক্ত করতে শিখুন এবং তাহলেই আপনার যা আছে তার মূল্য উপলব্ধি করতে পারবেন”। আত্মকরুণার সাথে কৃতজ্ঞতার অদলবদল করাই হচ্ছে মূল লক্ষ্য।

২. তারা তাদের শক্তিকে পরিত্যাগ করেন না: মরিন লিখেছেন, “মানুষ যখন শারীরিক বা মানসিক সীমাবদ্ধতার মধ্য দিয়ে যায় তখন সে তার শক্তি হারিয়ে ফেলে”। আপনার প্রয়োজন নিজের পাশে নিজেই দাঁড়ানো এবং প্রয়োজনে সীমা নির্ধারণ করা। যদি অন্য কেউ আপনার কাজ নিয়ন্ত্রণ করে তাহলে তারাই আপনার সাফল্য ও মূল্য নির্ধারণ করবে। তাই আপনার উচিৎ লক্ষ্য নির্ধারণ করা এবং সেই অনুযায়ী কাজ করা। মরিন অপরাহ উইনফ্রে এর উদাহরণ টেনে বলেন, তিনি নিজের ক্ষমতাকে দৃঢ়ভাবে আঁকড়ে ধরতে পেরেছেন। তিনি দারিদ্রতা এবং যৌন নির্যাতনের মোকাবেলা করেই বড় হয়েছেন। “তিনি তার নিজের ক্ষমতাকে বিসর্জন না দিয়ে জীবনে কী হতে চান সে বিষয়টিকেই চিহ্নিত করেছেন”।

৩. তারা পরিবর্তনকে ভয় পান না: মরিন লিখেছেন যে, পরিবর্তনের পাঁচটি স্তর আছে : প্রাক-চিন্তা, চিন্তা, প্রস্তুতি, কাজ এবং টিকিয়ে রাখা। এই পাঁচটি ধাপকে অনুসরণ করা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। পরিবর্তন ভীতির সৃষ্টি করতে পারে কিন্তু এর থেকে পালিয়ে বেড়ালে বৃদ্ধি প্রতিহত হয়। “যত বেশী সময় আপনি অপেক্ষা করে বসে থাকবেন ততই আপনার পক্ষে পাওয়া কঠিন হবে”, তিনি বলেন, “এর মাঝে অন্যরা আপনাকে অতিক্রম করে যাবে”।

৪. যা নিয়ন্ত্রণ করা যম্ভব নয় সে বিষয়ে তারা ফোকাস করেন না: ‘সবকিছু নিয়ন্ত্রণে থাকলে নিরাপদ অনুভব হয়, কিন্তু সবসময় সবকিছু আপনার নিয়ন্ত্রণেই থাকবে এমন চিন্তা করাটাও সমস্যা সৃষ্টি করতে পারে” – মরিন এমনটাই লিখেছেন। সবকিছু নিয়ন্ত্রণে রাখার চেষ্টা উদ্বেগেরই একটি প্রতিক্রিয়া। তিনি বলেন, “উদ্বেগ কমানোর প্রতি মনোনিবেশ করার চেয়ে আপনার চারপাশের পরিবেশকে নিয়ন্ত্রণে রাখার চেষ্টা করুন”। আপনার পক্ষে যা নিয়ন্ত্রণ করা সম্ভব নয় তার থেকে দৃষ্টি সরিয়ে নিলেই আপনার সুখ বৃদ্ধি পাবে, স্ট্রেস কমবে, সম্পর্কের উন্নতি ঘটবে, নতুন সম্ভাবনা তৈরি হবে এবং অনেক বেশী সফল হতে পারবেন।

৫. তারা সবাইকে খুশি করার চিন্তা করেন না: আমরা প্রায়ই নিজেকে বিচার করি অন্যরা আমাদের কেমন ভাবে তার উপর, যা মানসিক বলিষ্ঠতার বিপরীত। মরিনের মতে, মানুষকে খুশি করার চেষ্টা সময়ের অপচয় মাত্র, খুব সহজেই মানুষকে খুশি করা যায়, অন্যরা রাগান্বিত বা হতাশবোধ করাটাও স্বাভাবিক এবং আপনি সবাইকে খুশি করতে পারবেন না। অন্যদের খুশি করার মানসিকতা দূর করতে পারলেই আপনি শক্তিশালী এবং অনেক বেশী আত্মবিশ্বাসী হয়ে উঠতে পারবেন।

Recent Posts

Leave a Comment

Contact Us

We're not around right now. But you can send us an email and we'll get back to you, asap.